রুদ্রবীণা
ভারতী রাগ সঙ্গীতে ব্যবহৃত তার যন্ত্র বিশেষ। হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে, এই যন্ত্রটি তৈরি করেছিলেন রুদ্র (
মহাদেব-এর অপর নাম)।

মূলত এই যন্ত্রটি ভারতের প্রাচীন তার যন্ত্র। কিন্তু এই
যন্ত্রটির ব্যবহার ও জনপ্রিয়তা ক্রমে ক্রমে এতটাই কমে গিয়েছিল, যে ভারতবর্ষের অধিকাংশ মানুষ এক সময় এই বাদ্যযন্ত্রটি শুধু বইপত্রের বিবরণে পেতো। বিংশ শতাব্দীতে এই যন্ত্রটির নিজের নকশায় তৈরি করেন জিয়া মহিউদ্দীন ডাগর। পরবর্তী সময়ে ডাগর পরিবারের সদস্যরাই এই যন্ত্রের বাদনশৈলী নতুন করে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরেন। তবে প্রকৃত অর্থে একে নতুন করে জনপ্রিয় করে তোলেন ওস্তাদ আসাদ আলী খান। পরবর্তী সময়ে এই যন্ত্র পরিবশেন বিশেষ কৃতিত্ব দেখিয়েছেন ওস্তাদ শামসুদ্দীন ফরিদি দেসাই এবং ওস্তাদ বাহাউদ্দীন ডাগর।

ছায়ানটে শুদ্ধসঙ্গীত উৎসব ২০১২-এ রুদ্রবীণা বাজাচ্ছেন ওস্তাদ বাহাউদ্দীন ডাগর

এই যন্ত্রে কাঠামোটিতে ৫৪-৬২ ইঞ্চি লম্বা বাঁশ বা কাঠের দণ্ড থাকে। একে বলা হয় দণ্ডী। এই দণ্ডটি দুটি বড় বড় গোলাকার তুম্বার উপর বসানো থাকে। এই তুম্বা দুটি তৈরি হয়ে থাকে লাউয়ের খোলস দ্বারা। মূলদণ্ডের উপর নির্দিষ্ট দূরত্ব রেখে ২৪টি কাঠের আড়া স্থিরভাবে বসানো থাকে। প্রতিটি আড়ার উপরে তামার পাত বসানো থাকে। এই আড়াগুলোকে বলা হয় ঘাট। দণ্ডের দুই প্রান্ত থেকে সংযোজক চারটি প্রধান তার ও ৩টি চিকাই থাকে। এই তারগুলো হয় ইস্পাতের এবং ব্যাস হয় .৪৫-.৪৭ মিলিমিটার। এই তারগুলো ঘাটের উপর দিয়ে সটান অবস্থায় থাকে। তারগুলো যথাযথাভাবে বেঁধে মিজরাবের সাহায্যে বাজানো হয়। এই যন্ত্রের ধ্বনি গম্ভীর ও সুমিষ্ট।

ধ্রুপদ আঙ্গিকের সঙ্গীত এই যন্ত্রে বাজানো হয়ে থাকে। এই যন্ত্রের বাদনে রাগের দীর্ঘ আলাপ হয় ধ্রুপদের মতো করে এবং তালের বিভিন্ন গুণিতক মানে ধ্রুপদের বৈশিষ্ট্য বাদিত হয়ে থাকে।