মাড়

উত্তর ভারতীয় সঙ্গীত পদ্ধতিতে
বিলাবল ঠাটের অন্তর্গত রাগ বিশেষ। প্রকৃতি চঞ্চল।  এর চলন বক্র। অবরোহণে ঋষভ দুর্বল ও বক্রভাবে ব্যবহৃত হয়। ঋষভ ছাড়াও এই রাগে ধৈবতও দুর্বলভাবে ব্যবহৃত হয়। বিভিন্ন পণ্ডিতরা মনে করেন যে, রাজপুতনার লোক সুর থেকে এই রাগের সৃষ্টি হয়েছিল। অধিকাংশের মতে এর বাদীস্বর : ষড়্‌জ ও সমবাদী স্বর : পঞ্চম। কিন্তু এছাড়াও আরো তিনটি মত পাওয়া যায়। যেমন-
                
বাদীস্বর : ষড়্‌জ ও সমবাদী স্বর : মধ্যম।
                
বাদীস্বর : মধ্যম ও সমবাদী স্বর : ষড়্‌জ।
                
বাদীস্বর : পঞ্চম ও সমবাদী স্বর : গান্ধার।

কোনো কোনো
দুর্গার মতো ঔড়ব-সম্পূর্ণ হিসাবে দেখানো হয়।
 

  আরোহণ: স গ র ম গ প ম ধ প ন ধ র্স
অবরোহণ : র্স ধ ন প ধ ম প গ র গ ম স
ঠাট :  বিলাবল
জাতি : সম্পূর্ণ-সম্পূর্ণ।
বাদীস্বর : ষড়্‌জ
সমবাদী স্বর : পঞ্চম
অঙ্গ :  পূর্বাঙ্গ।
সময় : সর্বকালিক (মতান্তরে রাত্রি তৃতীয় প্রহর বা রা্ত্রির যে কোনো সময়)।
পকড় : স, ন ধ, ম, প গ, ম স

 

তথ্যসূত্র:
সঙ্গীত পরিচিতি (উত্তরভাগ)। শ্রীনীলরতন বন্দ্যোপাধ্যায়। ৫ই ভাদ্র' '৮০। ২১ আগষ্ট '৭৩