ক্রেটাসিয়াস অধিযুগ
ঊর্ধ্বক্রমবাচকতা { | অধিযুগ | ভূতাত্ত্বিক কাল | প্রবহমান-কাল | সত্তাগুণ | বিমূর্তন | বিমূর্ত সত্ত | সত্তা |}

মেসোজোয়িক যুগ (Mesozoic era)-এর অন্তর্গত এই অধিযুগের তৃতীয় ও শেষ অধিযুগ। জুরাসিক (Jurassic) অধিযুগের শেষে এই অধিযুগ শুরু হয়। এই অধিযুগের সময়সীমা ছিল ১৪ কোটি ৫০ লক্ষ বৎসর থেকে ৬ কোটি ৫০ লক্ষ বৎসর পর্যন্ত (মতান্তরে ১৩ কোটি ৫০ লক্ষ বৎসর থেকে ৬ কোটি ৩০ লক্ষ বৎসর পর্যন্ত)। এর ব্যাপ্তিকাল ছিল প্রায় ৮ কোটি বৎসর।  এই বৃহৎ সময়কালকে বিজ্ঞানীরা আরও দুটি অন্তঃযুগে ভাগ করেছেন। ভাগ দুটি হলো

    ১. আদ্য ক্রেটাসিয়াস অধিযুগ
    ২.
অন্ত্য ক্রেটাসিয়াস অধিযুগ


একটি ভূতাতত্ত্বিক অধিযুগ বিশেষ। ইংরেজি Cretaceous শব্দানুসারে বাংলাতে ক্রেটাসিয়াস শব্দটি গৃহীত হয়েছে। উল্লেখ্য ল্যাটিন "creta" (chalk) সূক্ষ্ণরন্ধ্রযুক্ত পাললিক পাথর) থেকে ইংরেজি Cretaceous শব্দ গৃহীত হয়েছে। অনেক ভাষায় একে চক অধিযুগ (chalk period) বলা হয়। কারণ এই অধিযুগে চক বা সূক্ষ্ণরন্ধ্রযুক্ত পাললিক পাথরের সৃষ্টি হয়েছিল। দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যাণ্ডে প্রাপ্ত চক-ধর্মী কিছু পাথর বিশ্লেষণ করে যে বয়স নিরূপণ করা হয়েছিল, সেই সময়কেই এই যুগের আরম্ভকাল ধরা হয়। এই সূত্রে এই যুগের নামকরণ করা হয়েছে ক্রেটাসিয়াস।
 

এই অধিযুগে গোণ্ডোয়ানা থেকে আফ্রিকা মহাদেশীয় প্লেট পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। ফলে দক্ষিণ আমেরিকা থেকে পুরোপুরিভাবে আফ্রিকা মুক্ত হয়ে যায়। এই সময় দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগর নূতনরূপ লাভ করে। গোণ্ডোয়ানা থেকে ভারত উপমহাদেশ বিচ্ছিন্ন হয়ে উত্তর দিকে সরে যেতে থাকে। এই সময়ে এন্টাক্টিকা এবং অস্ট্রেলিয়া মহাদেশ একত্রিত দশা থেকে মুক্ত হতে থাকে। উত্তর দিকে একত্রিত ভূখণ্ড ইউরেশিয়া আত্মপ্রকাশ করে নতুন রূপে। 

 

ক্রেটাসিয়াস অধিযুগের প্রথমার্ধের তাপমাত্রা যথেষ্ঠ উষ্ণ ছিল। ফলে এই সময়ে মেরু অঞ্চলে কোন বরফ ছিল না। এই কারণেই সাধারণ সমতল ভূভাগের বিচারে সমুদ্রের উপরিভাগ বেশ উচ্চ ছিল। অধিকাংশ ভূভাগের উপরিভাগে তখনও সমুদ্রের পানি ছিল। এই জলাভূমিতে সৃষ্টি হয়েছিল বিশাল বনভূমি। কোথাও কোথাও সৃষ্টি হয়েছিল উচ্চভূমির দ্বীপাঞ্চলের মতো অংশ। এই সকল উঁচুভূমি এবং জলসংলগ্ন ভূমিতে বিচরণ করতো বিভিন্ন প্রজাতির ডাইনোসরসমূহ।

 

ক্রেটাসিয়াস অধিযুগের প্রথমার্ধ অতিক্রান্ত হওয়ার পর থেকে ক্রমে ক্রমে পৃথিবীর  তাপমাত্রা কমতে শুরু করে। এই সময়ে আগ্নেয়গিরিগুলো অত্যন্ত সক্রিয় হয়ে উঠেছিল। তৈরি হয়েছিল বিভিন্ন আগ্নেয় পর্বতমালা। এই সময়ের সৃষ্ট উল্লেখযোগ্য পর্বতমালাগুলো হলো- উত্তর আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ার সিয়েরা নেভাডাস, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেরর পশ্চিমাঞ্চলীয় রকি পর্বতমালা, ইউরোপের আল্পস পর্বতমালা। মধ্য ক্রেটাসিয়াস অধিযুগে সমুদ্রের পানি ভূভাগের এক-তৃতীয়াংশ স্থান দখল করেছিল। এই সময়ে পৃথিবীর তাপমাত্রা কমতে থাকলে ক্রমে ক্রমে মেরু অঞ্চলে বরফ জমাট বাঁধতে শুরু করে। ফলে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা কমতে থাকে। ৭ কোটি বৎসর আগে ইন্দো-অস্ট্রেলীয় প্লেট প্রতি বৎসর ১৫ সেন্টিমিটার বেগে ইউরেশীয় প্লেটের দিকে অগ্রসর হয়েছিল। ৫কোটি বৎসর আগে এই প্লেট দ্রুত টেথিস সাগরে অতি নিকটে চলে আসে। ফলে সাগরতল সঙ্কুচিত হয়ে নানারকম উঁচু-নিচু অবস্থায় পৌঁছায়। সেই সাথে অসংখ্য অগ্ন্যুৎপাত ঘটে। এরই সূত্রে হিমালয় পর্বতমালার উত্থান ঘটতে থাকে। ৪ কোটি ৩০ লক্ষ বৎসর আগে ইন্দো-অস্ট্রেলিয়ীয় প্লেট বিভাজিত হয়ে ভারতীয় এবং অস্ট্রেলীয় প্লেটে বিভক্ত হয়ে যায়।

 

তারপরেও এই যুগের আবহাওয়া বেশ উষ্ণ ছিল। এই সময় জলে-স্থলে নতুন ধরনের ডাইনোসর-সহ অনেক সরীসৃপ ও পক্ষী জাতীয় প্রাণীএবং বিভিন্ন ধরনের উদ্ভিদের আবির্ভাব ঘটেছিল। অনুকূল আবহাওয়ার কারণে, এই অধিযুগের প্রথমার্ধ পর্যন্ত পৃথিবী ডাইনোসর-অধ্যুষিত গ্রহে পরিণত হয়েছিল। কিন্তু আবহাওয়ার দ্রুত পরিবর্তনের সাথে তাল রেখে নিজেদের টিকিয়ে রাখার ক্ষমতা ডাইনোসরগুলোর ছিল না। ধারণা করা হয়, ডাইনোসর বিলুপ্তির পিছনে মহাদেশীয় বিভাজন ও এবং এর সাথে পরিবর্তিত আবহাওয়া একটি মূখ্য ভূমিকা রেখেছিল। জীবজগতে অভিযোজনের সূত্রে কিছু প্রজাতির ভিতর শারীরবৃত্তীয় পরিবর্তন ঘটেছিল। ক্রেটাসিয়াস অধিযুগের শেষে ডাইনোসর-এর প্রায় বিলুপ্ত ঘটে। এই সময়ে স্তন্যপায়ী প্রাণী ও পক্ষীকূলের আধিপত্য বৃদ্ধি পেয়েছিল।
 

এই অধিযুগের শুরুর দিকে  ইউথেরিয়া থাকের স্তন্যপায়ী এবং প্রথম গর্ভফুলযুক্ত স্তন্যপায়ী প্রাণীর আবির্ভাব ঘটেছিল এই অধিযুগের শুরুতেই। এই সময়েই উদ্ভব ঘটেছিল দাঁতযুক্ত কিছু পাখির। এই যুগে উদ্ভিদ জগতে ঘটেছিল অভাবনীয় পরিবর্তন। এই অধিযুগেই আবির্ভূত হয়েছিল আদি সপুষ্পক উদ্ভিদসমূহ। অবশ্য এই  উদ্ভিদ জগতে এই বিবর্তন শুরু হয়েছিল পূববর্তী জুরাসিক অধিযুগ-এর শেষার্ধ থেকেই। 

এই অধিযুগের
ডাইনোসরের তালিকা নিচে দেওয়া হলো।

অউকাসোরাস
অগাস্টানিয়া
আঙ্গাটুরামা
আরাগোসোরাস
আরালোসোরাস

আর্কিয়োসেরাটপস
আর্কিয়োর্নিথোইডিজ
আর্গিয়োসোরাস
আর্ক্যানসোরাস
আর্জেন্টিনোসোরাস
আর্‌হৃনোসেরাটপস
আলাক্সাসোরাস
আল্টির্হিনাস
ঈজিপ্টোসোরাস
ঈপাইসোরাস
ঈয়োলোসোরাস
এন্টার্ক্টোসোরাস
এ্যাকান্থোফোলিস
এ্যাক্রোক্যান্থাস
এ্যাকিলোব্যাটর
এ্যাকেলোউসোরাস
এ্যাক্টিয়োসোরাস
এ্যাক্রোক্যান্থোসোরাস
এ্যাগাথাউমাস
এ্যাঙ্কিসেরাটপস
এ্যাডাসোরাস
এ্যানটোনিয়ান
এ্যানাবিসেটিয়া
এ্যানাসাজিসোরাস
এ্যানিম্যানট্যার্ক্স
এ্যানোপ্লোসোরাস
এ্যানোডোন্টোসোরাস
এ্যান্ডেসোরাস
 
এ্যান্সেরিমিমাস
এ্যাফ্রোভিন্যাটর
এ্যাবেলিসোরাস
এ্যাব্রোসোরাস
এ্যামার্গোসোরাস

এ্যামুরোসোরাস
এ্যাম্টোসোরাস
এ্যাম্ফিসিলিয়াস
এ্যারাউক্যানোর‌্যাপ্টর
এ্যারিস্টোসুকাস
এ্যালেক্ট্রোসোরাস
এ্যাল্টিস্পাইন্যাক্স
এ্যাল্‌ভারেজ্‌সোরাস
টির‌্যানোসোরাস
থেকোসিলুরাস
থেকোস্পন্ডিলাস